আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:
বিআরটিসি’র বিরুদ্ধে বিভিন্ন ফেসবুক আইডি থেকে অপতৎপরতাকারীদের বিরুদ্ধে সাইবার আদালতে মামলা। চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়ালো বিআরটিসি। এডভোকেট সোহানা তাহমিনার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা উচ্চ আদালতে। মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে ট্রাক প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করবেন এড, সোহানা তাহমিনা। লৌহজংয়ে নানা আয়োজনে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালিত। মুন্সীগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনে ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী পালিত হল মহান বিজয় দিবস। লৌহজং উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিজয় দিবস উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী মেলার আয়োজন। লৌহজংয়ে আদালতের রায় অমান্য করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, মানবেতর জীবন-যাপন ভুক্তভোগী পরিবার। লৌহজংয়ে ভাওতা দিয়ে লবণের বিনিময়ে সর্বস্ব লুট! লৌহজংয়ে ৫ জয়িতার সম্মাননা লাভ।
||
  • Update Time : জানুয়ারি, ২, ২০২২, ৬:১২ পূর্বাহ্ণ

স্ত্রীকে একসঙ্গে থাকতে বাধ্য করতে পারবে না স্বামী

অনলাইন ডেস্ক : পারিবারিক আদালতের রায়কে খারিজ করে দিয়ে ভারতের গুজরাট হাইকোর্ট বলেছেন, কোনো নারীকে স্বামীর সঙ্গে থাকতে বাধ্য করা যাবে না। এমনকি আদালতের নির্দেশ থাকলেও নয়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুসলিম আইনে বহুবিবাহ স্বীকৃত। তবে ইসলামে কখনোই বহুবিবাহকে উৎসাহ দেওয়া হয় না। এই যুক্তিতে স্বামীর সঙ্গে থাকতে প্রথম স্ত্রী অস্বীকার করতে পারেন বলে গুজরাট হাইকোর্ট রায় দিয়েছে।

বিচারপতি তার রায়ে বলেছেন, ভারতে যে মুসলিম আইন চালু আছে, তাতে বহুবিবাহ স্বীকার করা হয়েছে, কিন্তু কখনোই তাকে উৎসাহ দেওয়া হয়নি। স্ত্রীকে তার সঙ্গে থাকতে বাধ্য করতে পারে না স্বামী। স্বামীর সেই অধিকার নেই।দিল্লি হাইকোর্টের সাম্প্রতিক একটি রায়কে উদ্ধৃত করে গুজরাট হাইকোর্টও জানিয়েছে, অভিন্ন দেওয়ানি বিধি কখনোই নিছক আশার বিষয় হয়ে সংবিধানে থাকতে পারে না।

বিচারপতি জে বি পার্দিওয়ালা ও বিচারপতি নীহার মেহতা রায়ে বলেছেন, দাম্পত্যের অধিকার শুধু স্বামীরই থাকবে এটা হতে পারে না। পারিবারিক আদালত কোনো স্ত্রীকে স্বামীর সঙ্গে বসবাসে বাধ্য করতে পারে না।

বিচারপতিরা জানিয়েছেন, বনাসকান্থা জেলার পারিবারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে এক নারী আবেদন জানিয়েছিলেন। পারিবারিক আদালত দিয়েছিল, ওই নারীকে স্বামীর কাছে ফিরে যেতে হবে এবং স্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে হবে।

২০১০ সালের ২৫ মে ওই দম্পতির বিয়ে হয়েছিল। পেশায় নার্স ওই নারী স্থানীয় হাসপাতালে কাজ করতেন। কিন্তু তার স্বামী তাকে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার জন্য বাধ্য করছিলেন এবং সেখানে কাজ করার জন্য চাপাচাপি করছিলেন। এরপরই ছেলেকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি ছাড়েন ওই নারী।  তিনি আবেদনে জানিয়েছিলেন, তিনি কখনোই অস্ট্রেলিয়া যেতে চাননি।

হাইকোর্ট আইন উদ্ধৃত করে জানিয়েছেন, কোনো ব্যক্তি কোনো নারীকে জোর করে তার সঙ্গে থাকতে বাধ্য করতে পারে না। এভাবে সে দাম্পত্যের অধিকারও প্রতিষ্ঠিত করতে পারে না। এই নারীকেও তার ইচ্ছের বিরুদ্ধে তার স্বামী জোর করতে পারবে না।

স্বামীর বক্তব্য ছিল, তার স্ত্রী বেআইনিভাবে বাড়ি ছেড়ে চলে গেছে। তাকে বুঝিয়ে  বাড়ি ফেরানোর চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। তারপরই তিনি পারিবারিক আদালতে আবেদন করে জানান, স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনার অধিকার তার আছে। তবে  তার যুক্তি খারিজ করে দিয়েছে হাইকোর্ট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন