আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:
বিআরটিসি’র বিরুদ্ধে বিভিন্ন ফেসবুক আইডি থেকে অপতৎপরতাকারীদের বিরুদ্ধে সাইবার আদালতে মামলা। চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়ালো বিআরটিসি। এডভোকেট সোহানা তাহমিনার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা উচ্চ আদালতে। মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে ট্রাক প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করবেন এড, সোহানা তাহমিনা। লৌহজংয়ে নানা আয়োজনে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালিত। মুন্সীগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনে ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী পালিত হল মহান বিজয় দিবস। লৌহজং উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিজয় দিবস উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী মেলার আয়োজন। লৌহজংয়ে আদালতের রায় অমান্য করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, মানবেতর জীবন-যাপন ভুক্তভোগী পরিবার। লৌহজংয়ে ভাওতা দিয়ে লবণের বিনিময়ে সর্বস্ব লুট! লৌহজংয়ে ৫ জয়িতার সম্মাননা লাভ।
||
  • Update Time : সেপ্টেম্বর, ১৪, ২০২৩, ৭:৪৫ অপরাহ্ণ

রাজউকের নকশার বিচ্যুতি করে ভবন নির্মাণ!

এম রাসেল সরকার:নিজের সুবিধা মতো বাড়ি নির্মাণ বাড়ছে। মানা হচ্ছে না বিভিন্ন সংস্থা থেকে পাস করা নকশা। বাড়ি নির্মাণে সবচেয়ে বেশি নির্মাণ ত্রুটি হচ্ছে রাজধানী ঢাকায়। ইমারত নির্মাণ বিধিমালা কেবল নকশায়,বাস্তবে এর কোন প্রতিফলন নেই।

অনেকেই নিজেদের সুবিধা মতো নির্মাণ করছে বাহারি ডিজাইনের বাড়ি। একটি ভবন নির্মাণ করতে কমপক্ষে এক বছর সময় লাগলেও অভিযোগ রয়েছে অনেক বাড়ির মালিকের কাছে রক্ষিত রাজউকের অনুমোদিত নকশার ভাঁজ পড়ে না। নকশা যেভাবে অনুমোদন করিয়ে আনা হয়, সেভাবেই থাকে। সাইট ইঞ্জিনিয়ারের কাছে থাকে নিজেদের মতো তৈরি করা নকশা, তা দেখেই ভবন নির্মাণ করার অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিনে এমন এক বাড়ির দেখা মেলে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রাজউকের ৬/১ জোনের আওতাধীন রাজধানীর সবুজবাগ এলাকার কুলসুমবাগের ১নং রোডে। বাড়িটির মালিক মো: শহিদুল ইসলাম গং, যা কুলসুমবাগস্থ সি.এস-৩১০, আর.এস-২৩৪, এস.এ- ৪৩১ ও সিটি- ৩১৩৬, ৩০৫০ খতিয়ানস্থ সি.এস/এস.এ দাগ নং ১০৯৫, আর.এস- ৭৯২ ও সিটি- ৩৩৮৯, ৮৪৬৬ দাগে ৭ (সতি) কাঠা জমির উপর রাজউক থেকে জি+৯ (১০তলা) ভবনের অনুমোদন গ্রহন করে ভবন মালিক কর্তৃপক্ষ। যার স্বারক নং রাজউক-২৫.৩৯.০০০০.১২২.৩৩.১২৩.২১ তারিখ: ০৭/০৬/২০২১ ইং, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের নাম আব্দুল কাদের এন্টারপ্রাইজ।

অনুসন্ধানে দেখা যায়,বাড়িটির সম্মূখে মাটির কাঁচা রাস্তা যার প্রস্থ ১০ ফিট+ কিন্ত রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রাজউকের আইন অনুযায়ী বাড়ির সামনে পাকা রাস্তা এবং ২০ ফিট+ রাস্তা থাকতে হবে। যার বিন্দুমাত্র দেখা নেই। বাড়িটির চারি পার্শে ইচ্ছামত ডেভিয়েশন করেছেন। পরবর্তীতে পাশের বাড়ির জন্য পর্যাপ্ত জায়গা না রেখেই বাড়িটির নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে ভবন মালিক কর্তৃপক্ষ। যা অনুমোদিত নকশা বা নকশা পাশের প্রস্তাবনার সময় ১৫টি শর্ত সাপেক্ষে ভবনের নকশার অনুমোদন দিয়েছেন রাজউক তার সাথে কোন মিল নেই।

গ্রাম্য কাঁচা রাস্তা হলেও জনবহুল এলাকা। সেখানে জনসাধারন ও কর্মরত শ্রমীকদের সেফটির জন্য কোন সেফটি নেট ব্যবহার করা হয়নি। নাম সর্বস্য রাজউকের অনুমোদনের সাইনবোর্ড টানালেও তার সাথে কোন মিল নাই ভবনের। বর্তমানে ভবনটির ৮ তলা শেষে ৯ তলার কাজ চলমান রয়েছে।

উল্লেখ্য যে, ঢাকায় রাজউকের আওতাধীন এলাকায় যেসব বাড়ি নির্মাণ হয়ে থাকে সবগুলোর খবরই রাজউকের পরিদর্শকরা রাখেন,তারা ভবনগুলো পরিদর্শনও করেন, আবার ফিরেও যান কিন্তু রাজউকে অভিযোগের খাতা শূন্য থাকে। রাজউকের অনুমোদিত নকশার ব্যাত্যয় ঘটিয়ে অন্য নকশায় ভবন নির্মাণের উদাহরণ রাজধানীর প্রায় সর্বত্র।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যাক্তি বলেন, ‘রাজউক থেকে একটি নকশা অনুমোদন করিয়ে আনলেই হয়ে যায়। এরপর নিজের ইচ্ছা পমতো নির্মাণ করো, কোনো সমস্যা হবে না। একটু গলির ভেতরে বাসা হলে আরো বেশি সুবিধা। সেখানে রাজউকের বুলডোজার পৌঁছাবে না। তবে রাজউকের পরিদর্শকদের ‘ম্যানেজ’ করার ক্ষমতা থাকতে হবে ভবন মালিকদের। পরিদর্শকরা দুই দিন পর পর আসতেই থাকে। গলি বা মফস্বলের দিকে রাজউকের বড় কর্তারা কখনোই আসেন না।

ভবনটির বিষয় রাজউক ৬/১ জোনের ইমারত পরিদর্শক এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি এই বিষয় কিছুই জানিনা। যেহেতু জেনেছি আমি পরিদর্শন করে কোন অনিয়ম পেলে রাজউক আইন অনুসারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশ করবো।

আমাদের মতে, রাজউকের উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী রাজধানী ঢাকায় রাজউকের তালিকায় প্রায় ১০ হাজারের বেশি ত্রুটিপূর্ণ ভবন রয়েছে। এসব নকশা ব্যাত্যয় ঘটানো ভবনের বেশির ভাগ তথ্য এসেছে বিভিন্ন সময়ে রাজউকে জমা দেয়া সাধারণ মানুষের অভিযোগ থেকে। রাজউকের পরিদর্শকদের দায়িত্ব থাকলেও তাদের কাছ থেকে খুব কম তথ্যই আসে।

বরং অভিযোগ রয়েছে রাজউকের পরিদর্শকদের বেশির ভাগেরই একটি বিশাল ‘আয়’ আসে রাজধানীর ত্রুটিপূর্ণ ও নকশা ব্যাত্যয় ঘটিয়ে নির্মিত ভবনের মালিকদের কাছ থেকে। তাহলে কি রজউক এর কর্মকর্তারা অতিরিক্ত সুবিধা গ্রহনের জন্য এসব ভবনের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করছেন না? প্রশ্ন জনসাধারণ এর।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন