আজ ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:
বিআরটিসি’র বিরুদ্ধে বিভিন্ন ফেসবুক আইডি থেকে অপতৎপরতাকারীদের বিরুদ্ধে সাইবার আদালতে মামলা। চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়ালো বিআরটিসি। এডভোকেট সোহানা তাহমিনার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা উচ্চ আদালতে। মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে ট্রাক প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করবেন এড, সোহানা তাহমিনা। লৌহজংয়ে নানা আয়োজনে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালিত। মুন্সীগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনে ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী পালিত হল মহান বিজয় দিবস। লৌহজং উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিজয় দিবস উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী মেলার আয়োজন। লৌহজংয়ে আদালতের রায় অমান্য করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, মানবেতর জীবন-যাপন ভুক্তভোগী পরিবার। লৌহজংয়ে ভাওতা দিয়ে লবণের বিনিময়ে সর্বস্ব লুট! লৌহজংয়ে ৫ জয়িতার সম্মাননা লাভ।
||
  • Update Time : আগস্ট, ২১, ২০২২, ৯:২৩ পূর্বাহ্ণ

ব্যবসায়ী এনামুল হক সবুজের স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে রহস্যজনক মৃত্যু!

মোঃ রাসেল সরকারঃ শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা উপজেলাধীন কনেশ্বর ইউনিয়ন এর পশ্চিম ছাতিয়ানী গ্রামের মরহুম নোয়াব আলী সরদারের পুত্র এনামুল হক সবুজের মৃত্যু নিয়ে আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে চলছে ব্যাপক জল্পনা কল্পনা। স্বজনের দাবী তার মৃত্যু রহস্যজনক তার বোন তাসলিমা বেগম শরীয়তপুর কোটে ৭ জন আসামী করে একটি হত্যা মামলা করেন। একাধিক সূত্র থেকে জানা যায় পুলিশ এ ব্যাপারে তাদের তদন্ত কাজ অব্যাহত রেখেছে।এনামুল হক সবুজ একটি প্রতিষ্ঠান কর্ণধার তার প্রতিষ্ঠানের নাম হাইমেক্স ইউনানী ফার্মাসিটিক্যালস এটি ঢাকায় মানিকনগরে অবস্থিত।

দারিদ্রতার সাথে যুদ্ধ করে এনামুল হক সবুজ আজ প্রায় কোটি কোটি টাকার মালিক হওয়াটাই তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে, শ্রম আর মেধা দিয়ে তিনি শীর্ষে অবস্থান করেছেন। এলাকার জনসাধারণের মধ্যে তিনি ব্যাপক ভাবে সাহায্য সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছিলেন। তার এই মৃত্যুকে স্বাভাবিক ভাবে মেনে নিতে পারছে না  তার পরিবার। পবিত্র ঈদুল আজহার দিবাগত রাত্র ৪টার সময় তার রহস্যজনক মৃত্যু হয়। শুশুর জুলহাস সরদার  ভোর রাতে তাকে ডামুড্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। এরপর কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

তড়িঘড়ি করে ওইদিনই তার লাশ দাফন কাফন শেষ করে ফেলেন। সবুজের মা বোন ও সহ পরিবারের সদস্য সবুজের লাশ দেখতে চাইলে শুশুর জুলহাস সরদার, দেখানো যাবে না বলে সবুজের লাশ দাফন করে ফেলেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকাবাসী তারা আরো জানান বিষয়টি তদন্ত করলে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসবে । এই ব্যাপারে এনামুল হক সবুজের শুশুর জুলহাস কে প্রশ্ন করলে জড়তার সৃষ্টি হয় এবং বলে এই ব্যাপারে আমি কিছু বলবো না।

আমি আমার মেয়ের সাথে আলাপ করে আপনাদের সাথে কথা বলবো। তিনি আরো বলেন আমি এসপি সাহেবের সাথে কথা বলেছি, সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে কি বলেছেন তখন তিনি এড়িয়ে যান। কোন উত্তর না দিয়ে কেটে পড়েন। উল্লেখ্য জুলহাস সরদার কনেশ্বর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক।

অপরদিকে জানা যায়, এনামুল হক সবুজের প্রতিষ্ঠান এর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্বে গ্রহণ করেন জুলহাস সরদারের ছেলে সাইফুল ইসলাম অপু।

কি ভাবে প্রতিষ্ঠানিক দায়িত্ব জুলহাস এর ছেলে  নিলেন.?।প্রতিষ্ঠান মালিক অর্থাৎ এনামুল হক সবুজের দ্বিতীয় স্ত্রী ঢাকায় রয়েছেন। অন্যদিকে তার ভাই বোন রয়েছেন। মাঝখানে জুলহাস সরদারের ছেলে কি কারণে প্রতিষ্ঠানটি দখল করে আছেন। এই রহস্য মৃত্যুর জটিলতাকে উন্মোচন করবে।

মৃত্যুর এক সপ্তাহের মাথায় সহায় সম্পদ এবং প্রতিষ্ঠান দখল নিয়ে শুরু হয়ে যায় প্রতিযোগিতা, অনুসন্ধানে আরো কিছু চাঞ্চল্যক তথ্য পাওয়া যায় এনামুল হক সবুজের স্ত্রী শামীমা আক্তার এর পরকীয়ার কিছু অশ্লীল ভিডিওচিত্র। বিস্তারিত আসছে শীগ্রই। (অনুসন্ধান চলছে !!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন