আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম:
বিআরটিসি’র বিরুদ্ধে বিভিন্ন ফেসবুক আইডি থেকে অপতৎপরতাকারীদের বিরুদ্ধে সাইবার আদালতে মামলা। চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়ালো বিআরটিসি। এডভোকেট সোহানা তাহমিনার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা উচ্চ আদালতে। মুন্সিগঞ্জ-২ আসনে ট্রাক প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করবেন এড, সোহানা তাহমিনা। লৌহজংয়ে নানা আয়োজনে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালিত। মুন্সীগঞ্জে বর্ণাঢ্য আয়োজনে ও বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী পালিত হল মহান বিজয় দিবস। লৌহজং উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিজয় দিবস উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী মেলার আয়োজন। লৌহজংয়ে আদালতের রায় অমান্য করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, মানবেতর জীবন-যাপন ভুক্তভোগী পরিবার। লৌহজংয়ে ভাওতা দিয়ে লবণের বিনিময়ে সর্বস্ব লুট! লৌহজংয়ে ৫ জয়িতার সম্মাননা লাভ।
||
  • Update Time : সেপ্টেম্বর, ১৪, ২০২২, ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ

গোপালগঞ্জে পরকীয়ার জেরে প্রবাসী আজিজুর হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, দুইজন খালাস!

কে এম সাইফুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ গোপালগঞ্জে স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে কুয়েত প্রবাসী স্বামী আজিজুর রহমান হত্যার দায়ে গঠিত দায়রা মামলা নং ৭৩/২০০৭ -এর দীর্ঘ ১৫ বছর পর অভিযুক্ত আসামি হাবিবুর রহমান ওরফে হাবুকে মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের রায় দিয়েছে বিচারিক আদালত। এ সময় আজিজুর রহমানের স্ত্রী রাবেয়া বেগম ওরফে (তাপসী) ও আলী মিয়াকে খালাস দেওয়া হয়।

আজ মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আব্বাস উদ্দীন এ রায় প্রদান করেন। এ ঘটনায় মূল আসামী হাবিবুর রহমান ওরফে হাবু পলাতক রয়েছে। মামলার বিবরণ সূত্রে জানাগেছে, ২০০৭ সালে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ভাজন্দী গ্রামের আজিজুর রহমান কুয়েতে থাকার সুবাদে তার স্ত্রী দুই সন্তানের জননী রাবেয়া বেগম ওরফে তাপসী পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে তোলেন পার্শ্ববর্তী ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার নওয়াপাড়া এলাকার মোতালেব মির্জার ছেলে হাবিবুর রহমান ওরফে হাবুর সাথে। এ ঘটনা জানাজানি হলে কুয়েত প্রবাসী আজিজুর রহমান দেশে ফিরে আসে।

পরে ২০০৭ সালের ১৮ মার্চ কৌশলে আজিজুর রহমানকে ফোনে দাওয়াত খাওয়ানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে যায় হাবিবুর রহমান। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে খাবারের সাথে চেতনা নাশক ঔষধ মিশিয়ে তাকে অচেতন করে মুকসুদপুর উপজেলার দিগনগর ব্রীজের পাশে গম ক্ষেতের মধ্যে নিয়ে আজিজুর রহমানকে রশি দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরের দিন সকালে স্থানীয় লোকজন গম ক্ষেতের মধ্যে তার লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠায়।

পরে এ ঘটনায় আজিজুর রহমানের পিতা মো. সরাব আলী শেখ ২০০৭ সালে ১৯ মার্চ হাবিবুর রহমান হাবুর পুত্রবধূ রাবেয়া বেগম ওরফে তাপসী ও আলী মিয়া সহ অজ্ঞাত ৩/৪ জনকে আসামি করে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। হত্যা মামলায় দীর্ঘ ১৫ বছর পর স্বাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে আসামি হাবিবুর রহমান ওরফে হাবুকে মৃত্যুদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের রায় দিয়েছেন। একই মামলায় ওপর দুই আসামি রাবেয়া বেগম ওরফে তাপসী এবং আলী মিয়াকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষে বিজ্ঞ এপিপি এ্যাড.মো. শহিদুজ্জামান খান এবং আসামি পক্ষে ফজলুল হক খান মামলাটি পরিচালনা করেন বলে গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বেঞ্চ সহকারী মো. মাহাবুবুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন